আমাদের ব্যবসায়িক অখণ্ডতা

ইনসাইডার ডিলিং নিরোধ

কর্মীরা কোন অবস্থাতেই অভ্যন্তরীণ চুক্তিতে আবদ্ধ হতে পারবে না।

জেটিআই'তে এর গুরুত্ব কী?

ইনসাইডার ডিলিং বলতে বুঝায় ব্যক্তিগত মুনাফার স্বার্থে তৃতীয় পক্ষের সাথে প্রতিষ্ঠানের অভ্যন্তরীণ তথ্য শেয়ার করা। অভ্যন্তরীণ তথ্যের ভিত্তিতে সুপারিশ করাও এর আওতায় পড়ে। অভ্যন্তরীণ তথ্য হলো যেকোন অ-সর্বজনীন (সকলের জন্য উনাক্ত নয় এমন) তথ্য, যেটা প্রকাশিত হলে কোম্পানির নিরাপত্তার উপর বিশেষ প্রভাব পড়তে পারে। অভ্যন্তরীণ তথ্যের মধ্যে আছে আর্থিক ফলাফল, মুনাফা ঘোষণা, শেয়ার ক্রয়-সংক্রান্ত বিষয়াবলী, বৃহৎ সম্প্রসারণ পরিকল্পনা, প্রস্তাবিত সম্মেলন এবং অধিগ্রহণ বা কর্তৃত্ব গ্রহণ।

একজন জেটিআই কর্মীর কাছে এর গুরুত্ব কী?

আমি অভ্যন্তরীণ তথ্যের অন্তর্ভুক্ত কোন সিকিউরিটিজ (যেমন- শেয়ার, বণ্ড অথবা স্টক সুবিধা) নিজে কেনাবেচা করি না এবং এই কাজে অন্যকেও উৎসাহ দেই না। আমার উপর। দায়িত্ব অর্পিত না হলে আমি তৃতীয় কোন পক্ষের সাথে অভ্যন্তরীণ তথ্য শেয়ার করি না।

আমার কোন সহকর্মী বা কোন ব্যবসায়িক অংশীদার কর্তৃক নিয়োগপ্রাপ্ত কর্মী যদি যৌক্তিক কোন কারণ দর্শানো ব্যতীত অভ্যন্তরীণ তথ্য পাওয়ার চেষ্টা করছে বলে মনে হয়, তাহলে আমি তাৎক্ষণিক চিফ ফাইন্যান্সিয়্যাল অফিসার অথবা কমপ্লায়্যান্স টিমের একজন সদস্যকে অবহিত করি।

কীরকম পরিস্থিতিতে প্রয়োগ করতে হবে?

এখানে অভ্যন্তরীণ চুক্তির জন্য ঝুঁকিপূর্ণ কিছু পরিস্থিতির নমুনা দেওয়া হলো:

  • বিজনেস ডেভেলপমেন্ট দলের কোন সদস্য সম্ভাব্য নির্ধারিত প্রতিষ্ঠানের শেয়ার কিনতে আগ্রহী হলে।
  • জেটি-এর অর্থ-বিষয়ক অ-সর্বজনীন কোন তথ্য সম্পর্কে অবগত ফাইন্যান্স দলের কোন একজন কর্মী তার জেটি শেয়ার বিক্রি করতে চাইলে।
  • আমার স্বামী জেটি শেয়ার কিনতে আগ্রহ প্রকাশ করল এবং আমার কাছে প্রতিষ্ঠানের এখনও পর্যন্ত অঘোষিত আর্থিক ফলাফল সম্পর্কে জানতে চাইল।

বিস্তারিত জানুন